হজ এজেন্সিগুলোকে সতর্ক করলেন রাষ্ট্রপতি

জাতীয়

হজ ব্যবস্থাপনায় সম্পৃক্ত সরকারি কোনো কর্মচারী অবহেলা করলে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। একই সঙ্গে হজ এজেন্সিগুলোকেও সতর্ক করেছেন তিনি।
গতকাল মঙ্গলবার হজ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি বলেন, “হজযাত্রীদের ৯৫ শতাংশের বেশি হজ এজেন্সিগুলোর মাধ্যমে সৌদি আরব গমন করে থাকেন। অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে দেখা যায় অনেক এজেন্সি যেসব সুযোগ-সুবিধার কথা বলে হাজীদের মক্কা-মদিনায় নিয়ে যান, ওখানে যাওয়ার পর তা আর রক্ষা করেন না। ফলে হাজীদের অবর্ণনীয় দুর্দশার মধ্যে পড়তে হয়।
“আবার অনেক সময় দেখা যায় হজ গমণেচ্ছুদের কাছ থেকে টাকা-পয়সা নিয়ে একটি অসাধু চক্র সটকে পড়ে। সবকিছু পরিশোধ করেও হজযাত্রীগণ যখন তাদের হজযাত্রায় অনিশ্চয়তা দেখেন বাধ্য হয়েই তখন তারা অনশনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন। শেষ সময়ে সরকারের হস্তক্ষেপে সেসব হজযাত্রীদের হজে পাঠাতে হয়েছে। এহেন কার্যক্রম দেশের ভাবমূর্তিকে ক্ষুণ্ন করে। হাজীদের সাথে এ ধরণের প্রতারণা কোনভাবেই কাম্য নয়।”
হজ এজেন্সিগুলোর প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে আবদুল হামিদ বলেন, “এখন থেকে কোনো ব্যক্তি, এজেন্সি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেলে সরকার কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে পিছপা হবে না। হজ ব্যবস্থাপনার সাথে সম্পৃক্ত সরকারি কোনো কর্মকর্তা ও কর্মচারীর দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে অবহেলা, অনিয়ম ও দুর্নীতি পরিলক্ষিত হলে তাদের বিরুদ্ধেও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।”
হজের জন্য যারা মক্কা-মদিনায় অবস্থান করেন, তারা যেন কোনো বিড়ম্বনার শিকার না হন, তা নিশ্চিত রাষ্ট্রপতি হজ এজেন্সিগুলোর সংগঠন হাব এর প্রতি আহ্বান জানান।
বাংলাদেশ থেকে এবছর প্রায় এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজ পালনে সৌদি আরব যাবেন।
হজযাত্রীদের উদ্দেশে রাষ্ট্রপতি বলেন, “বাংলাদেশের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে আপনারা বাংলাদেশকে তুলে ধরবেন। আপনাদের আচার-আচরণ, কথা-বার্তায় কেউ যাতে কষ্ট না পায়, আমাদের সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণার সৃষ্টি না হয় সে দিকে বিশেষ খেয়াল রাখবেন।”
আশকোনা হজ ক্যাম্পে ওই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেষ মো. আবদুল্লাহ। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী, ঢাকা-১৮ আসনের সংসদ সদস্য সাহারা খাতুন, সৌদি দূতাবসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স হারকান হুয়াইদি বিন শুয়াইহ, ধর্মসচিব আনিছুর রহমান, হজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম।
পরে রাষ্ট্রপতি হজযাত্রীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *