মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সিলেট জেলা ইউনিট কমান্ডের র‌্যালি ও সমাবেশ

শীর্ষ খবর সিলেট

মুজিববর্ষকে স্বাগত জানিয়ে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সিলেট জেলা ইউনিট কমান্ডের উদ্যোগে নগরীতে র‌্যালি বের করা হয়। মঙ্গলবার (১০ মার্চ) সকালে নগরীর ক্বীনব্রীজ থেকে র‌্যালিটি শুরু হয়ে জিন্দাবাজারস্থ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ে এসে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সিলেট জেলা ইউনিট কমান্ডের সভাপতি সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েলের সভাপতিত্বে ও বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবল চন্দ্র পালের পরিচালনায় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. নাসির উদ্দিন খান।
আরো বক্তব্য রাখেন সাবেক এমপি মকসুদ ইবনে আজিজ লামা, জেলা ডেপুটি কমান্ডার আকরাম আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদ উদ্দিন আহমদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা সিদ্দেক আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা যাদব বিশ্বাস, গোলাপগঞ্জ উপজেলার সাবেক কমান্ডার আব্দুল মুতলিব, বিশ্বনাথ উপজেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা ওয়াহিদ আলী, শ্রমিক লীগ নেতা জাফর চৌধুরী, বিয়ানীবাজার উপজেলা কমান্ডার আব্দুল কাদির, জকিগঞ্জ উপজেলা কমান্ডার আব্দুস সালাম, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা কমান্ডার রফিক উদ্দিন আহমদ, গোয়াইনঘাট উপজেলা কমান্ডার আব্দুল হক, বীর মুক্তিযোদ্ধা আকমল আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা চিত্তরঞ্জন দেব, মুক্তিযোদ্ধা যুব কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও জেলা যুবলীগ নেতা মনোজ কপালী মিন্টু, যুব কমান্ড নেতা শেখ মো. আলম, অরুন কান্তি কর, শাহ ময়নুর রহমান, কামরুল আহমদ শাহ প্রমুখ।
সভায় বক্তারা বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে দেশ স্বাধীন হতো না। আগামী ১৬ মার্চ মুজিববর্ষ উপলক্ষে রিকাবীবাজারস্থ সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ও মহানগরের উদ্যোগে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হেেছ। ‘মুক্তিযুদ্ধাদের মুখে মুক্তিযুদ্ধের কথা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে জেলার প্রতিটি স্কুলে অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও ৫ম শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত তিনটি পর্যায়ে প্রবন্ধ আহ্বান করে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। বিজয়ী ১০জনকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ও মহানগরের পক্ষ থেকে পুরস্কার প্রদান করা হবে।
এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধারা সভায় নানা দাবি দাওয়া তুলে ধরেন। ২৫ হাজার টাকা ভাতা প্রদান, সকল প্রজন্মের সর্বস্তরের শিক্ষা অবৈতনিক, মুক্তিযোদ্ধা ও নির্ভরশীল সদস্যদের চিকিৎসার সকল ব্যয়ভার সরকার করবে, বাসস্থানের ব্যবস্থা গ্রহণ, ট্যাক্স ফি করণ, রেশনের ব্যবস্থা, গ্যাস ও ইলেকক্ট্রিক ফি এবং দেশে বিদেশের সকল যাতায়াত ফ্রি করে দেওয়ার দাবি জানান তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *