ব্রাজিলে করোনায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়াল

বিশ্ব শীর্ষ খবর

লাতিন আমেরিকার সর্ববৃহৎ দেশ ব্রাজিলে করোনায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়াল। সরকারি কর্মকর্তাদের বরাতে বিবিসির বৃহস্পতিবারের প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়ে বলা হচ্ছে, করোনায় শীর্ষ সংক্রমিত দেশগুলোর তালিকায় তৃতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলে প্রাণ হারিয়েছেন প্রায় দেড় লাখ কোভিড-১৯ রোগী।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার নতুন করে ৩১ হাজার ৫৫৩ জনের দেহে ভাইরাসটির সংক্রমণ শনাক্তের পর মোট সংক্রমিতের সংখ্যা ৫০ লাখ ৬৯৪ জন বলে জানিয়েছে ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের পর বিশ্বে করোনা সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ঘটিয়েছে ব্রাজিলে। দৈনিক সংক্রমণ এখনও ৩০ হাজারের বেশি।

প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকেই করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে সুরক্ষামূলক পদক্ষেপ নিতে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ ও অনুরোধ অগ্রাহ্য করছেন দেশটির কট্টর ডানপন্থী প্রেসিডেন্ট জায়ের বোলসোনারো। এ জন্য বেশ সমালোচিতও হন তিনি। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হলেও এক সময় তিনি করোনাকে নর্মাল ফ্লু বলে অভিহিত করেছিলেন।

তার বিরুদ্ধে করোনা মোকাবিলায় ব্যর্থতার যে অভিযোগ উঠেছে তা অস্বীকার করেছেন বোলসোনারো। কিন্তু তার লকডাউনবিরোধী অবস্থান এবং অর্থনীতিতে মনযোগ; দেশটির মানুষের মধ্যে ব্যাপক মতভেদ তৈরি করে।

ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মঙ্গলবার করোনায় আক্রান্ত আরও ৭৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে কোভিড-১৯ নামক মহামারি এই রোগে মোট ১ লাখ ৪৮ হাজার ২২৮ মানুষ প্রাণ হারালো।

লাতিন অঞ্চলে মহামারি করোনায় সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ব্রাজিলে। দেশটির সাও পাওলো রাজ্যে ভাইরাসটির প্রকোপ সবচেয়ে বেশি। সেখানে প্রায় ৩৬ হাজার প্রাণহানি হয়েছে। এর পর ব্রাজিলের রাজধানী অঞ্চল রিও ডি জেনিরোতে মারা গেছে প্রায় ১৯ হাজার কোভিড-১৯ রোগী।

অবশ্য দেশটিতে সম্প্রতি করোনার প্রকোপ কিছুটা কমেছে। কয়েক সপ্তাহ আগেও যে সংক্রমণ ও মৃত্যু ছিল তা এখন কমতে শুরু করেছে। তবে এখনও সপ্তাহে ৫ হাজার করোনা রোগী প্রাণ হারাচ্ছেন। করোনা সংক্রমণের চূড়ায় যখন দেশটি তখন সাপ্তাহিত এ সংখ্যা ৭ হাজারে গিয়ে ঠেকেছিল।