নিহত রায়হান হত্যা মামলায় কনস্টেবল হারুনের জামিন নামঞ্জুর

সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে নিহত রায়হান আহমদ হত্যা মামলায় কারাবন্দি মহানগর পুলিশের কনস্টেবল হারুনুর রশিদের জামিন নামঞ্জুর হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে আসামির পক্ষে তার আইনজীবী জামিন চেয়ে সিলেট মহানগর দায়রা জজ আব্দুর রহিমের আদালতে আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করেন। শুনানিকালে হারুনকে আদালতে আনা হয়নি। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী নওশাদ আহমদ চৌধুরী জানান, রাষ্ট্রপক্ষের বিরোধিতার কারণে কনস্টেবল হারুনের জামিন নামঞ্জুর হয়েছে।
রায়হানের আইনজীবী ও সিলেটের সাবেক পিপি এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেন, কনস্টেবল হারুন জামিন প্রার্থনা
করলে আদালত তা নামঞ্জুর করেন। তিনি বলেন, রায়হান হত্যার ঘটনার সাথে সরাসরি হারুন জড়িত ছিলো। জামিন শুনানিকালে আমরা জামিনের বিরোধিতা করেছি। এ ঘটনায় কয়েকজন পুলিশ কনস্টেবল আদালতে পূর্বে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। আমাদের বক্তব্য শোনার পর আদালত জামিন নামঞ্জুর করেন।
এর আগে মঙ্গলবার সকাল ১১টায় আসামিদের জামিনের বিষয়ে খবর পেয়ে রায়হানের মা সালমা বেগমসহ তার পরিবারের লোকজন আদালত প্রাঙ্গণে হাজির হন। হারুনের জামিন নামঞ্জুর হওয়ায় আদালতের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে রায়হানের মা সালমা বেগম বলেন, আদালত জামিন না দিয়ে ন্যায় বিচার করেছেন । আমি আমার ছেলেকে হারিয়েছি, ছেলে হারানো কত কষ্টকর তা একজন মা ভালো বলতে পারবেন। আমি ছেলে হত্যার যথাযথ বিচার চাই।
নগরীর আখালিয়ার নেহারীপাড়ার বাসিন্দা রায়হান আহমদকে গত বছরের ১১ অক্টোবর দিবাগত রাতে বন্দরবাজার ফাঁড়িতে ধরে নিয়ে আসে পুলিষ। রাত ৩টা ৯ মিনিট ৩৩ সেকেন্ডে স্বাভাবিক অবস্থায় রায়হানকে ফাঁড়িতে ধরে আনে পুলিশ। সকাল ৬টা ২৪ মিনিট ২৪ সেকেন্ডে রায়হানকে ফাঁড়ি থেকে বের করা হয়। ৬টা ৪০ মিনিটে ওসমানী হাসপাতালে নেয়া হয় এবং ৭টা ৫০ মিনিটে মারা যায় রায়হান। ঐ দিনই ময়না তদন্ত শেষে তার লাশ দাফন করা হয়। এ ঘটনায় রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন।