ঝিংগারখাল মৎস্যজীবী সমিতির সংবাদ সম্মেলন

মিডিয়া ওয়াচ সার্ভিস ক্লাব সিলেট

কানাইঘাটের শেওতচুড়া জলমহাল যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে প্রকৃত মৎস্যজীবীদের ইজারা দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন ঝিংগারখাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সদস্যবৃন্দ। গতকাল সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এ আহবান জানান তারা। তারা অভিযোগ করেন, শাহজালাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেড নামে একটি সমিতি অসৎ উপায়ে জলমহালের ইজারা নিতে বিভ্রান্তিমূলক তথ্য উপস্থাপন করছে।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, কানাইঘাটের শেওতচুড়া জলমহালের ইজারা নিতে দরপত্র আহবান করা হলে ঝিংগারখাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিঃ দরপত্র জমা দেয়। একইভাবে শাহজালাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডসহ আরো কয়েকটি সমিতি দরপত্র জমা দেয়। প্রকৃত এবং জলমহালের নিকটবর্তী সমিতিকে জলমহাল ইজারা দিতে কানাইঘাট উপজেলা প্রশাসন ও জলমহাল কমিটি তদন্ত করে। এই তদন্তে সুরাহা না হওয়ায় পুন:তদন্ত হয়। পুন:তদন্তে ঝিংগারখাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি জলমহালের ১ম নিকবর্তী হওয়ায় এই সমিতিকে ইজারা প্রদানের সুপারিশ করা হয়। এর বিরুদ্ধে শাহজালাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেড উচ্চআদালতে একটি রিট পিটিশন দাখিল করে। যার নম্বর ১৬৭৫/২০১৯। তবে এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে আদালত কোনো নির্দেশনা প্রদান করেননি। এ অবস্থার মধ্যে তদান্তীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিলেটের জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে উচ্চআদালতের বিজ্ঞ সলিসিটর উইং বরাবরে মতামত প্রদানের জন্য একটি পত্র প্রদান করেন। যার স্মারক নং ৫৮৭। পরবর্তীতে রিট পিটিশনের বিরুদ্ধে সরকারের পক্ষ থেকে আপিল করা হয়। এখনো সেটি বিচারাধীন রয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে তারা অভিযোগ করে বলেন, আইনি প্রক্রিয়া সম্পন্ন না হলেও শাহজালাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি জলমহালটি ইজারা নিতে ভুল তথ্য ও বিভ্রান্তিমূলক অপপ্রচারের আশ্রয় নিয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে আরো অভিযোগ করা হয়, শেওতচুড়া জলমহালটি এর আগে অর্থের জোরে লিজ নিয়ে মৎস্য আহরণ করে আসছিল অমৎস্যজীবীদের নিয়ে গড়ে ওঠা শাহজালাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেড। সর্বশেষ তাদের লিজের মেয়াদ শেষ হলে পুনরায় ১৪২৬-১৪২৮ বাংলা সন পর্যন্ত লিজ নেওয়ার জন্য তোরজোর শুরু করে এবং দরপত্রও জমা দেয়। এরই মধ্যে শাহজালাল মৎস্যজীবী সমিতি লিমিটেডের সভাপতি ফখর উদ্দিন সরকারিভাবে তিন বছরের ইজারা পাওয়ার তথ্য এলাকায় প্রচারের মাধ্যমে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন। তাদের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে ঝিংগারখাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সদস্যরা প্রতিবাদ জানিয়ে আসছেন। জলমহালের সবচেয়ে নিকটবর্তী এবং প্রকৃত মৎস্যজীবীদের শেওতচুড়া জলমহালটি যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ইজারা দেওয়ার জন্য তারা সংশ্লিষ্ট মহলের কাছে জোর দাবি জানান।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ঝিংগারখাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমদ, সদস্য জিয়াউর রহমান, আবুল আহমদ, সুহেল আহমদ, আবুল মিয়া, আনছার আলী, সেলিম উদ্দিন, করিম উদ্দিন ও ইলিয়াছ আলী প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *