কানের সমস্যায় ভুগবেন বিশ্বের ২৫ শতাংশ মানুষ

বিশ্ব শীর্ষ খবর

শ্রবণশক্তি হ্রাস পাওয়া মানুষের সংখ্যা আগামী তিন দশকে দেড় গুণেরও বেশি বাড়তে পারে। ২০১৯ সালের হিসাব অনুযায়ী, শ্রবণ সমস্যায় আক্রান্ত মানুষের সংখ ১৬০ কোটি। ২০৫০ সাল নাগাদ এই সংখ্যা বেড়ে প্রায় ২৫০ কোটি হতে পারে। রয়টার্স

[৩] বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়, শ্রবণ সমস্যার ব্যাপারে যথার্থ পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হলে তা ভুক্তভোগীদের জন্য স্বাস্থ্যগত, অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ক্ষতির কারণ হবে। বর্তমানে বিশ্বে প্রতি পাঁচজনের মধ্যে একজন শ্রবণ সমস্যায় ভুগছে বলে প্রতিবেদনটিতে বলা হয়। শ্রবণ সমস্যা প্রতিরোধ ও চিকিৎসায় অতিরিক্ত বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছে ডব্লিউএইচও। প্রতিবেদনে একটি প্যাকেজ পদক্ষেপের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। এই প্যাকেজ অনুযায়ী বছরে জনপ্রতি ১ দশমিক ৩৩ ডলার খরচ হতে পারে। এএফপি

[৪] কান ও শ্রবণসেবায় বিনিয়োগ লাভজনক। এই খাতে ১ ডলার বিনিয়োগ করলে বিপরীতে ১৬ ডলার ফেরত পাওয়া যেতে পারে। হু’র মহাসচিব তেদরোস আধানম ঘেব্রেয়াসুস বলেছেন, ‘আমাদের শ্রবণক্ষমতা মূল্যবান একটি বিষয়। শ্রবণশক্তি হ্রাসের চিকিৎসা না হলে তা মানুষের যোগাযোগ, শিক্ষা ও জীবিকার সক্ষমতার ওপর ধ্বংসাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে। এটা মানুষের মানসিক স্বাস্থ্য ও সম্পর্ক বজায় রাখার সক্ষমতাকেও প্রভাবিত করতে পারে।’