অনাড়ম্বর পরিবেশে ‘কেমুসাস মাহবুব ভবন’ উদ্বোধন

শীর্ষ খবর সাহিত্য সিলেট

অনাড়ম্বর অথচ প্রাণের ছোঁয়া লাগা পরিবেশে দেশের অন্যতম প্রাচীন সাহিত্য প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের নব নির্মিত সুরম্য ভবন ‘ কেমুসাস মাহবুব ভবন’ উদ্বোধন করা হয়েছে। ৫তলা বিশিষ্ট ভবনটি নির্মাণে একক অর্থদাতা, প্রখ্যাত সাহিত্যানুরাগী মাহবুবুর রহমান গতকাল ৬ অক্টোবর রাতে ফিতা কেটে ভবনটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। কেমুসাস মাহবুব ভবন নির্মাণের পর প্রায় ৬ বছর যাবত ভবনটি ব্যবহার করা হলেও আনুষ্ঠানিকভাবে তা উদ্বোধন করা হয়নি। সাহিত্য সংসদ কতৃপক্ষ আড়ম্বরপূর্ণ আনুষ্ঠানিকতায় ভবনটি উদ্বোধন করতে চাইলেও ভবনটির দাতা মাহবুবুর রহমান আনুষ্ঠানিকতা এড়িয়ে চলছিলেন গত ৬ অক্টোবর তিনি সংসদ পরিদর্শনে এলে কার্যকরী পরিষদের উপস্থিত কর্মকর্তাদের অনুরোধে তিনি অতি সাধারণভাবে একটি ফিতা কেটে ভবনটি উদ্বোধন করতে সম্মত হন।
ভবনটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন উপলক্ষে সাহিত্য সংসদ কার্যালয়ে আয়োজিত তাৎক্ষণিক সভায় মাহবুবুর রহমান বলেন, ঐতিহ্য চেতনা থেকেই আমি সাহিত্য সংসদের ভবনটি নির্মাণের কাজে হাত দিই। ভবনটি নির্মিত হয়েছে। এখন আমাদের পূর্বসূরিদের ধারাবাহিকতায় পাঠক তৈরী, লেখক তৈরী মোট কথা মননশীল মানুষ গড়ে তোলার জন্য আমাদেরকে কাজ করতে হবে।
সংসদের সহসভাপতি লে. কর্নেল সৈয়দ আলী আহমদ (অব.)-এর সভাপতিত্বে ও সহসভাপতি সেলিম আউয়ালের সঞ্চলনায় সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সংসদের সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সহসভাপতি মুহাম্মদ বশিরুদ্দিন, কমিটির প্রবীণ কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমান চৌধুরী, সহসাধারণ সম্পাদক সাবিনা আনোয়ার, কোষাধ্যক্ষ সৈয়দ মুহিবুর রহমান, সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল মুকিত অপি, কার্যকরী পরিষদ সদস্য অ্যাডভোকেট আবদুস সাদেক লিপন, জাহেদুর রহমান চৌধুরী, সৈয়দ মাহাম্মদ তাহের, সাবেক সহসাধারণ সৈয়দ মবনু, কার্যকরী পরিষদ সদস্য রুহুল ফারুক, জীবন সদস্য ড. তুতিউর রহমান, রুহুল আজম মাসুদ, জাহেদ আহমদ প্রমুখ। সভার শুরুতে কোরআন তেলাওয়াত করেন জাহেদুর রহমান চৌধুরী ও মোনাজাত পরিচালনা করেন সৈয়দ মুহিবুর রহমান।
উল্লেখ্যস ৬ কোটিরও বেশি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ভবনটির নিচতলায় গাড়ি পার্কিং, সাহিত্য আসর কক্ষ, নামাজের কক্ষ, দ্বিতীয় তলায় শহিদ সোলেমান হল, সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কক্ষ, তৃতীয় তলায় লাইব্রেরি, সাহিত্য সংসদের অফিস, চতূর্থ তলায় পাঠাগার ও কনফারেন্স রুম এবং পঞ্চম তলায় সিলেট বিভাগের বৃহত্তম জাদুঘর ‘কেমুসাস ভাষাসৈনিক মতিন উদদীন জাদুঘর’ রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *